বুধবার, ০১ এপ্রিল ২০২০, ০২:০৫ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম :
করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে জনমনে সচেতনতা ও সহযোগীতায় আটপাড়া উপজেলা ছাত্রদল আটপাড়ায় লুনেশ্বর ইউনিয়নে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ের বরাদ্দকৃত চাল বিতরণ বারহাট্টায় দু’পক্ষের সংঘর্ষ- আহত -৭ আটপাড়ায় বানিয়াজান ইউনিয়নে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ের বরাদ্দকৃত চাল বিতরণ এই বছর পহেলা বৈশাখের অনুষ্ঠান না করার নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর আটপাড়া উপজেলা, করোনা ভাইরাস সংক্রমণের প্রতিরোধ হিসেবে যুব মহিলা লীগের সচেতনতামূলক কার্যক্রম অনুষ্টিত আটপাড়ায় জেলা পরিষদ সদস্য মোঃ সুমন খানের লিফলেট, মাস্ক, সাবান, হ্যান্ড গ্লাভস ও শুকনো খাবার বিতরণ আটপাড়ায় যুবলীগের সম্পাদক রুকুনুজ্জামান রুকন এর নেতৃত্বে করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে কার্যক্রম পরিচালিত নেত্রকোনা জেলা ছাত্র দলের সহ সভাপতির নেতৃত্বে মাস্ক বিতরণ আটপাড়ায় প্রশাসনের করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে নিয়মিত মনিটরিং ও মোবাইল কোর্ট পরিচালিত হচ্ছে
থানকুনি পাতার অবিশ্বাস্য গুনাগুন

থানকুনি পাতার অবিশ্বাস্য গুনাগুন

প্রথম সকাল ডেক্সঃ ভেষজ গুণের দুনিয়াতে থানকুনি বেশ প্রসংশিত। নানা কার্যকারিতা দিয়ে ধরে রেখেছে নিজের অবস্থান। থানকুনি বর্ষজীবি উদ্ভিদ। কোনো প্রকার যত্ন ছাড়াই জন্মে। মাটির ওপর লতার মতো বেয়ে ওঠে। পাতা গোলাকার ও খাঁজকাটা। সাধারণত স্যাঁতস্যাঁতে পরিবেশেই থানকুনি গাছ বেশি জন্মে। তাই পুকুরপাড় বা জলাশয়ের পাশে থানকুনির দেখা মেলে বেশি।ভেষজগুণে সমৃদ্ধ থানকুনির রসে রয়েছে শরীরের জন্য প্রচুর উপকারী খনিজ ও ভিটামিন জাতীয় পদার্থ। গ্রামাঞ্চলে বাড়ির আশেপাশে, রাস্তার পাশে কিংবা ক্ষেতের আইলে ছোট ছোট তারার মত খাঁজকাটা এই পাতাগুলো দেখতে পাওয়া যায়। অনেক অভাবি মানুষ ভাতের সাথে এই পাতাটিকে ভর্তা করে খায়। আবার স্বাদের কারণে অনেক ধনীরাও এই পাতাটিকে ভর্তা করে খায়। তবে সব অঞ্চলের মানুষ থানকুনি পাতা নামে এই পাতাটিকে নাও চিনতে পারে। অঞ্চলভেদে এই পাতাটিকে টেয়া, মানকি, তিতুরা, থানকুনি, আদামনি, ঢোলামানি, থুলকুড়ি, মানামানি , ধূলাবেগুন, আদাগুনগুনি নামে ডাকা হয়। থানকুনি পাতা শাক হিসেবে রান্না করে খাওয়া হয়, বিশেষ করে ভর্তা বা কাঁচা পাতা সালাদ হিসেবেও খাওয়া যায়।
থানকুনি পাতা
আসুন এক নজর দেখি যৌবন ধরে রাখতে ও পেট সুস্থ রাখতে থানকুনি পাতার ভেষজ গুণগুলি কি?
১. পেটের রোগ নির্মূল করতে থানকুনির বিকল্প নেই। নিয়মিত খেলে যে কোনও পেটের রোগ থেকে মুক্তি পাবে। একই সঙ্গে পেট নিয়ে কোন দিন সমস্যায় ভুগতে হবে না।থানকুনি পাতা সব ধরনের পেটের রোগের মহৌষধ। পাতা বেটে ভর্তা করে বা ঝোল করে খেলে বদহজম, ডায়রিয়া, আমাশয় ও পেটব্যথা দূর হয়।
২. আলসার, একজিমা, হাঁপানিসহ নানা চর্মরোগ নিরাময় হয় থানকুনি পাতা খেলে। ত্বকেও জেল্লা বাড়ে।
৩. থানকুনি পাতায় থাকে Bacoside A ও B. B মস্তিষ্কের কোষ গঠনে সাহায্য করে ও রক্ত চলাচল বাড়ায়। থানকুনি পাতা নিয়মিত খেলে স্মৃতিশক্তি বৃদ্ধি পায়।
৪. মৃতকোষের ফলে চামড়ায় অনেক সময়ই শুষ্ক ছাল ওঠে। ত্বক রুক্ষ হয়ে যায়। থানকুনি পাতার রস মৃতকোষগুলিকে পুনর্গঠন করে ত্বক মসৃণ করে দেয়।
৫. পুরনো ক্ষত সারাতে থানকুনি পাতা সেদ্ধ করে তার পানি দিয়ে নিয়মিত ধুলে সহজে নিরাময় হবে। নতুন ক্ষতে থানকুনি পাতা বেটে লাগালে উপকার পাওয়া যায়।
৬. থানকুনি পাতা চুল পড়া আটকে দেয়। নতুন চুল গজাতেও সাহায্য করে।অর্থাৎ অপুষ্টির কারণে মাথা থেকে চুল পড়ার সমস্যা হলে থানকুনি পাতার রস খেলে উপকার পাবেন।
৭. থানকুনি কেন্দ্রীয় স্নায়ুতন্ত্রকে সক্রিয় রাখতে সাহায্য করে। সংবহনতন্ত্রের স্থায়ীভাবে স্ফীত ও বর্ধিত শিরা কমাতে সহায়তা করে।
৮. থানকুনি দেহের ক্লান্তি দূর করে লাবণ্য ধরে রাখতে সাহায্য করে।বয়স বাড়লেও যৌবন ধরে রাখে থানকুনি পাতার রস। প্রতিদিন একগ্লাস দুধে ৫-৬ চা চামচ থানকুনি পাতার রস মিশিয়ে খেলে, চেহারায় লাবণ্য আসে, আত্মবিশ্বাসও বেড়ে যায়।
৯. দাঁতের রোগ সারাতেও থানকুনির জুড়ি মেলা ভার। মাড়ি থেকে রক্ত পড়লে বা দাঁতে ব্যথা করলে একটা বড় বাটিতে থানকুনিপাতা সিদ্ধ করা জল ছেকে নিয়ে কুলকুচি করলে দ্রুত উপকার পাওয়া যায়।





আজকের নামাজের সময়সূচী

    Dhaka, Bangladesh
    বুধবার, ১ এপ্রিল, ২০২০
    ওয়াক্তসময়
    সুবহে সাদিকভোর ৪:৩৪
    সূর্যোদয়ভোর ৫:৫০
    যোহরদুপুর ১২:০২
    আছরবিকাল ৩:৩০
    মাগরিবসন্ধ্যা ৬:১৪
    এশা রাত ৭:৩০

স্বর্ণা যুব সমবায় সমিতি লিঃ

পুরাতন সংবাদ

শুক্র শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ
 
১০১১১২১৩১৪১৫১৬
১৭১৮১৯২০২১২২২৩
২৪২৫২৬২৭২৮২৯৩০
©2019PROTHOM SOKAL24. All rights reserved.
Design BY PopularHostBD